মেনু নির্বাচন করুন
Text size A A A
Color C C C C
সর্ব-শেষ হাল-নাগাদ: ১৯ মার্চ ২০১৮

বাংলাদেশের LDC হতে উত্তরণে বাংলাদেশ ন্যাশনাল হারবেরিয়ামের অবদান ও অর্জন


প্রকাশন তারিখ : 2018-03-19

           

বাংলাদেশ ন্যাশনাল হারবেরিয়াম দেশের উদ্ভিদ সম্পদের উপর ট্যাক্সোনমিক গবেষণায় নিয়োজিত একটি জাতীয় প্রতিষ্ঠান। দেশের ভেষজ সম্পদ, উদ্ভিদের শ্রেণিবিন্যাসতাত্ত্বিক এবং অর্থনৈতিক দিক দিয়ে উল্লেখযোগ্য উদ্ভিদ সম্পদের গবেষণা ও উন্নয়ন, পরিবেশ সংরক্ষণ এবং দেশের জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণে হারবেরিয়াম গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে থাকে। ১৯৭০ সাল হতে বাংলাদেশ ন্যাশনাল হারবেরিয়াম দেশের প্লান্ট ট্যাক্সোনমিক গবেষণা, দেশের উদ্ভিদ সম্পদ জরিপ এবং উদ্ভিদ প্রজাতির নমুনা সংগ্রহ, সংরক্ষণ এবং সনাক্তকরণে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে আসছে। এলডিসি হতে উত্তরনে ন্যাশনাল হারবেরিয়ামের  অবদান ও অর্জনসমূহ নিম্নরূপ:

 

  • উক্ত প্রতিষ্ঠানের জন্য ঢাকার মিরপুরে আধুনিক গবেষণার সুযোগ সুবিধাসহ পাঁচ লক্ষ শুষ্ক উদ্ভিদ নমুনা (হারবেরিয়াম নমুনা) সংরক্ষণ ক্ষমতা সম্পন্ন প্রায় ২৭০০ বর্গ মিটার আয়তন বিশিষ্ট দ্বিতল হারবেরিয়াম ভবন নির্মাণ করা হয়েছে। সারা দেশব্যাপী উদ্ভিদ জরিপ কার্যক্রমের আওতায় ন্যাশনাল হারবেরিয়ামে এ পর্যন্ত ১৫০,০০০টির অধিক উদ্ভিদ নমুনা সংরক্ষণ করা হয়েছে যাহা জাতীয় সম্পদ হিসেবে বংশানুক্রমে সংরক্ষিত থাকবে।
  • ফ্লোরিষ্টিক প্রকাশনা ন্যাশনাল হারবেরিয়ামের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ। ‘Flora of Bangladesh’ প্রকাশনা কার্যক্রমের আওতায় এ পর্যন্ত মোট ৬৩টি সংখ্যায় ৭৫টি পরিবারের সচিত্র বিবরণ প্রকাশিত হয়েছে। ন্যাশনাল হারবেরিয়াম এ পর্যন্ত দেশের ২২৬টি বিলুপ্তির আশংকাযুক্ত উদ্ভিদ প্রজাতি চিহ্নিত করেছে এবং তাদের আইউসিএন স্যাটাস, বিলুপ্তির কারণ ও সংরক্ষণ পদ্ধতি সম্বলিত দুইটি ‘রেড ডাটা বুক অব ভাস্কুলার প্লাণ্টস্ অব বাংলাদেশ’ শীর্ষক পুস্তক প্রকাশ করেছে। এছাড়া পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের স্থানীয় জনগণ কর্তৃক ব্যবহৃত ৭০০টি ভেষজ উদ্ভিদ প্রজাতির সচিত্র বিবরণ এবং ব্যবহার সম্বলিত একটি পুস্তক প্রকাশ করা হয়েছে। এছাড়াও হারবেরিয়ামের বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তাগণ তাঁদের গবেষণার আওতায় এ পর্যন্ত আনুমানিক ২৪০টি গবেষণাপত্র ও পুস্তক-পুস্তিকা প্রকাশ করেছেন। অধিকন্তু ন্যাশনাল হারবেরিয়াম থেকে ‘Bangladesh Journal of Plant Taxonomy’ নামে একটি দ্বি-বার্ষিক জার্ণালের ২৪ টি ভলিউম প্রকাশ করা হয়েছে।
  • ন্যাশনাল হারবেরিয়াম দেশের উদ্ভিদ বৈচিত্র্য সমীক্ষা ও সংরক্ষণ সংক্রান্ত এ পর্যন্ত ২২টি প্রকল্প  বাস্তবায়িত করেছে। বর্তমানে বৃহত্তর চট্টগ্রাম এবং পার্বত্য চট্টগ্রাম অঞ্চলের ভাস্কুলার উদ্ভিদ প্রজাতি সমূহের পুঙ্খানুপুঙ্খ অনুসন্ধান, ফ্লোরিস্টিক দলিল রচনা এবং নমুনা সংরক্ষণের জন্য ‘সার্ভে অব ভাস্কুলার ফ্লোরা অব চিটাগাং এন্ড দ্যা চিটাগাং হিল ট্রাক্টস্’ শীর্ষক একটি প্রকল্প চলমান রয়েছে। বর্ণিত প্রকল্পের আওতায় মাঠ পর্যায়ে উদ্ভিদ জরিপ কাজ পরিচালনাপূর্বক তথ্য এবং ছবিসহ এ যাবত ৩০০০০ টি উদ্ভিদ নমূনা সংগ্রহ করা হয়েছে। সনাক্তকৃত উদ্ভিদ নমুনার মধ্য হতে এ পর্যন্ত ৫০টি নতুন রেকর্ডসহ ১৬০০টি উদ্ভিদ প্রজাতির তালিকা তৈরী করা হয়েছে। জরিপের মাধ্যমে ৫১টি উদ্ভিদ প্রজাতির পুনঃআবিস্কার করা হয়েছে। প্রকল্পের আওতায় তিন খন্ডে একটি সচিত্র পুস্তক রচনার কাজ চলমান রয়েছে।
  • ন্যাশনাল হারবেরিয়ামের গবেষকগণ ২টি উদ্ভিদ প্রজাতি আবিষ্কার করেছেন যা বিশ্বে জীব বিজ্ঞান গবেষণায় নব অবদান হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছে। এছাড়া বাংলাদেশের জন্য নতুন এমন ১৭০টি উদ্ভিদ প্রজাতি আবিষ্কার করা হয়েছে।
  • দেশের বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে প্লাণ্ট ট্যাক্সোনমি বিষয়ে উচ্চতর গবেষণায় নিয়োজিত ২০ জন ছাত্র-ছাত্রী/ গবেষকদের গবেষণা/ডিগী (পিএইচডি ৬ জন, এমফিল ৩ জন এবং এমএসসি ১১ জন) অর্জনে সহায়তা প্রদান করেছে। সরকারি ও বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়/গবেষণা প্রতিষ্ঠান থেকে এ পর্যন্ত প্রায় ৩০০০ ছাত্র/ছাত্রীকে গাছপালা সনাক্তকরণ ও তথ্য সরবরাহ কাজে ন্যাশনাল হারবেরিয়াম সহায়তা দান করেছে।

 

উদ্ভিদ বৈচিত্র্য সর্ম্পকিত মৌলিক গবেষণা পরিচালনার মাধ্যমে ন্যাশনাল হারবেরিয়াম জলবায়ু পরিবর্তন ও পরিবেশের ভারসাম্য রক্ষায় এবং দুর্যোগের ঝুঁকি হ্রাসে পরোক্ষভাবে গুরুত্বপূর্ণ অবদান রাখছে।


Share with :

Facebook Facebook